E-Shram Card: এই কার্ড থাকলে চাকরী ছাড়াই মিলবে পেনশন! কেন্দ্রের প্রকল্প

WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now

নিজস্ব প্রতিবেদন: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশের সাধারণ মানুষের সুবিধার জন্য যে যে প্রকল্প গুলি চালু করেছেন তার মধ্যে অন্যতম একটি হলো E-Shram Card। লোকসভা ভোটের আগেই এই কার্ড উপভোক্তাদের জন্য বিশেষ একটি ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী।

এর মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষরা প্রতি মাসে ৩০০০ টাকা করে পাবেন। এই কার্ডের মাধ্যমে দেশের অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মী বা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ইত্যাদি শ্রেণীর মানুষরা এই পেনশনের সুবিধা উপভোগ করে থাকেন। ৬০ বছর বয়স হলেই এই পেনশনের সুবিধা পান আবেদনকারীরা।

এখনো পর্যন্ত দেশের ২০ কোটিরও বেশি মানুষ এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করেছেন এবং দুই কোটির বেশি মানুষকে এই প্রকল্পের সুবিধা প্রদান করা শুরু হয়ে গেছে। মহিলা ও পুরুষ যে কোনো মানুষের বয়স সর্বনিম্ন ১৬ থেকে সর্বোচ্চ ৫৯ বছর হলেই তারা এই প্রকল্পের জন্য আবেদন জানাতে পারবেন। এই প্রকল্পের মাধ্যমে কি কি সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন দেখে নিন।


Some Features of E-Shram Card

  • ১) এই কার্ড এর মাধ্যমে ৬০ বছর বয়স অতিক্রম করলে আবেদনকারী ব্যাক্তি মাসিক নগদ ৩০০০ টাকা পেনশন লাভ করবেন।
  • ২) এই কার্ডটি সারা ভারতে বৈধ বলে গণ্য হবে।
  • ৩) এই কার্ডের মাধ্যমে আবেদনকারী প্রধানমন্ত্রী সুরক্ষা বীমা যোজনা বা PMSBY এর সুবিধা লাভ করতে পারবেন। প্রধানমন্ত্রী সুরক্ষা বীমা যোজনায় দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু কিংবা পূর্ণাঙ্গ বিকলাঙ্গ হলে অর্থ সাহায্য লাভ করা যায়।
  • ৪) আবেদনকারীর পাকা বাড়ি বা বাসস্থান না থাকলে এই কার্ডের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে অর্থ সাহায্য পাওয়া যায়।
  • ৫) এই কার্ডের আবেদনকারীরা তাদের সন্তানদের পড়াশোনার জন্য সরকারের তরফ থেকে অর্থ সাহায্য পাবেন।
  • ই-শ্রম কার্ডের আবেদন পদ্ধতি
পড়ুনঃ  Bank Merged - দুই নামী ব্যাঙ্ক ফের হল এক! গ্রাহকদের কতটা বাড়তি সুবিধা মিলবে, দেখুন


অনলাইনে ছাড়াও কেউ নিকটবর্তী Common Service Center (CSC) গিয়েও আবেদন করতে পারেন। অনলাইনে আবেদন করতে হলে প্রথমে https://register.eshram.gov.in/#/user/self -এ রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। তারপরে নির্দিষ্ট মোবাইল নম্বরে OTP আসবে। সেই নম্বর দেওয়ার পরেই রেজিস্ট্রেশন করার বাকি পদ্ধতি সম্পূর্ণ করা যাবে।

সেখানে নাম, ঠিকানা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, কোন ক্ষেত্রে কাজ করেন এই সমস্ত তথ্য দিতে হবে। সেই সঙ্গে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের তথ্য দেওয়ার পরে ‘সাবমিট’ করতে হবে। তার আগেই আরেকবার দেখে নিতে হবে সব তথ্য ঠিক আছে কী না। তারপরে আপনি সেখানেই e-Shram Card দেখে নিয়ে ডাউনলোড করতে পারবেন। ডাউনলোড করার সময়েও OTP চাইবে। সেটা দেওয়ার পরেই ডাউনলোড করা যাবে ওই কার্ড।

সারা ভারতবর্ষে যে কোন প্রান্তে বসবাসকারী মানুষরা এই কার্ডের জন্য আবেদন জানাতে পারবেন। তবে আবেদন জানানোর জন্য কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্রের প্রয়োজন হবে। সেগুলি হল আধার কার্ড, প্যান কার্ড, এক কপি সাম্প্রতিক রঙিন পাসপোর্ট সাইজ ফটো, ব্যাংক একাউন্টের বিবরন এবং বৈধ মোবাইল নম্বর। এমন আপডেট আরো পেতে আমাদের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Gupta Ajay

নমস্কার, আমি অজয় গুপ্ত। আমি একজন কনটেন্ট রাইটার। বিগত ৫ বছর ধরে টেক, ব্যবসা, অনলাইন ইনকাম, লাইফস্টাইল ইত্যাদি বিষয়ে লেখালিখি করছি। লেখা নিয়ে কোন মতামত থাকলে কমেন্টে জানাতে পারেন। Ajay Gupta Senior Content Writter

Leave a Comment

error: Content is protected !!