বাড়িতে বসে অনলাইনে কাজ, মাসে ৫০ হাজার! প্রমাণ সহ দেখুন আজই

WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ বাড়িতে বসে অনলাইনে (Online Income) কাজ খুব সহজে আয় করার অনেক উপায় আছে। বর্তমান যুগ এখন অনলাইনের। তথ্যপ্রযুক্তির আশীর্বাদে বদলে দিয়েছে গোটা বিশ্ব। অনলাইন কাজের নতুন দিগন্ত উন্মোচন করছে। অনলাইনে কাজ করে আয়ের সুযোগ তৈরি হয়েছে অনেক। অনেকেই ঘরে বসে ইন্টারনেট ব্যবহার করে বিভিন্নভাবে আয় করছেন। এর জন্য বেশ কয়েকটি প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। কিন্তু গ্যারান্টিযুক্ত আয়ের জন্য সঠিক প্ল্যাটফর্ম বেছে নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

বাড়িতে বসে অনলাইনে কাজ

কারণ অনলাইনে অন্য যেকোনো জায়গার মতো অনেক জালিয়াতির ফাঁদ রয়েছে। একটা কথা মনে রাখবেন, অনলাইনে কাজ করে রাতারাতি কোটিপতি (Online Income) হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এমন ফাঁদে পড়লে বিপদে পড়বেন। সঠিক প্ল্যাটফর্মে নিয়ম বুঝে এবং অনুসরণ করে অনলাইন আয় নিশ্চিত করা যায়। এর জন্য আপনাকে অনলাইন প্লাটফর্ম, ওয়েবসাইট এবং রিসোর্স সম্পর্কে ধারনা থাকতে হবে।

ঘরে বসে ফ্রিল্যান্সিং (Online Income)

ফ্রিল্যান্সিং হল সবচেয়ে জনপ্রিয় অনলাইন আয়ের প্লাটফর্ম। আউটসোর্সিং বা ফ্রিল্যান্সিং হবে আগামী দিনে আয় ও কর্মসংস্থানের বড় উৎস। বেশ কিছু ওয়েবসাইট বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সারদের দক্ষতার উপর ভিত্তি করে ফ্রিল্যান্স কাজের সুযোগ দেয়।

সেখানে আপনাকে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং আপনার দক্ষতা অনুযায়ী জবের জন্য আবেদন করতে হবে। নিয়োগকর্তা তাদের চাহিদা অনুযায়ী ফ্রিল্যান্সারদের সাথে যোগাযোগ করে কাজ দেন। কিছু ওয়েবসাইটে কাজের দক্ষতার বিবরণ প্রয়োজন, যাতে ক্রেতা সরাসরি তাদের সাথে যোগাযোগ (Online Income) করতে পারে।

এই সাইটগুলির মধ্যে Fiver.com, upwork.com, freelancer.com এবং worknhire.com-এ ফ্রিল্যান্সিং কাজ পাওয়া যায়। এই সাইটগুলি থেকে আপনি প্রতি ঘন্টায় ৫ থেকে ১০০ ডলার আয় করতে পারেন। মনে রাখতে হবে কাজ শেষ করে নিয়োগকর্তার অনুমোদন পেলেই টাকা পেমেন্ট করবে। এই ক্ষেত্রে, নিয়োগকর্তা কাজের মানের উপর একটি রেটিং আপনাকে দিতে পারে। গ্রাহক পছন্দ না হওয়া পর্যন্ত ফ্রিল্যান্সারকে কাজ করতে হবে। বিভিন্ন অনলাইন পেমেন্ট (Online Income) পদ্ধতি ব্যবহার করে অর্থ প্রদান করা হয়ে থাকে।

Data Entry income online

অনলাইনে সবচেয়ে সহজ কাজগুলির মধ্যে একটি হল Data Entry। এক্ষেত্রে অবশ্য আয় খুবই কম। যাইহোক, অটোমেশনের কারণে এই ধরনের কাজ এখন খুব কমই পাওয়া যায়। তবে সুযোগ পেলে হাতছাড়া না করাই ভালো। অনলাইনে খোঁজ করলে এমন কাজ পাওয়া সম্ভব। আমাদের প্রতিবেদন দেখতে থাকুন। আমরা সময় অনুসারে এই বিষয়ে নানা আপডেট দিতে থাকব।

যাদের কম্পিউটার, ইন্টারনেট এবং দ্রুত টাইপিং দক্ষতা আছে তারা এ ধরনের কাজ করতে পারেন। বেশিরভাগ ফ্রিল্যান্সিং সাইটে এই ধরনের কাজ রয়েছে। কিন্তু যাদের যেকোনো কাজে দক্ষতা আছে, তারা সহজেই কাজ পেতে পারেন এবং দ্রুত নিজের আয় (Online Income) বাড়াতে পারেন। ঘরে বসেই অফিসে না গিয়ে এমন কাজ করে ভালো পরিমান আয় করা এখন আরও সহজ।

পড়ুনঃ  Loan Apps: লোন অ্যাপের ফাঁদ থেকে বাঁচুন! নতুন সতর্কতা জারি

নিজস্ব Online Website Income

এখন আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য প্রচুর রিসোর্স অনলাইনে পাওয়া যায়। এর মধ্যে রয়েছে ডোমেইন নির্বাচন, টেমপ্লেট এবং ওয়েবসাইট ডিজাইন ইত্যাদি। এগুলি নিয়ে আপনি অনলাইনে ছোট ছোট কোর্স করেও নিতে পারবেন। এতে নিজের দক্ষতা বাড়বে।

আপনি যখন ওয়েবসাইটের বিভিন্ন বিষয়বস্তু পাঠক বা দর্শকদের কাছে পরিবেশন করতে প্রস্তুত, তখন আপনি Google AdSense এর জন্য আবেদন করতে পারেন। যখন গুগল এর বিজ্ঞাপনগুলি সাইটে দেখাতে শুরু করে এবং ক্লিক পেতে শুরু করে, তখন আয় আপনার আসতে শুরু করে। ওয়েবসাইটে যত বেশি ট্রাফিক বা ভিজিটর থাকবে, আপনার আয়ের (Online Income) পরিমাণ তত বেশি।

বিজ্ঞাপন দেখে টাকা ইনকাম

এমন অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যা আপনাকে দেওয়া বিজ্ঞাপনে ক্লিক করার জন্য আপনাকে অর্থ প্রদান করবে। এই ধরনের সাইটকে PTC সাইট বলা হয়। কাজ শুরু করার আগে রেজিস্ট্রেশনের প্রয়োজন হয়। তবে মনে রাখবেন যে পিটিসি সাইটগুলি বেশিরভাগই ভুয়া। তাই কাজ করার আগে আপনাকে অবশ্যই নিশ্চিত হতে হবে যে এটি আসল সাইট কিনা। অনেক সময় এইসব সাইটে বন্ধুদের রেফার করে আয় করতে পারেন।

জরিপ, সার্চ এবং রিভিউ করে ইনকাম

আপনি অনলাইন জরিপে অংশগ্রহণ করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। অনেক ওয়েবসাইট সার্ভে নেওয়ার জন্য টাকা প্রদান করে। এছাড়াও, আপনি অনলাইন অনুসন্ধান এবং পণ্য পর্যালোচনা লিখেও আয় করতে পারেন। যাইহোক, এই ক্ষেত্রে, ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশ ছাড়াও ক্রেডিট কার্ড বা ব্যাঙ্কিং তথ্য প্রয়োজন হতে পারে। তাই এ ক্ষেত্রে কাজ করার সময় সতর্ক থাকতে হবে। এই বিষয়ে, আপনি কোনটি আসল এবং কোনটি প্রতারনামূলক তা যাচাই করে কাজ করতে পারেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে টাকা আয়

এই পদ্ধতিতে আয়ের (Online Income) ক্ষেত্রেও নিজের ওয়েবপেজ বা ব্লগ প্রয়োজন। যখন ওয়েবসাইট বা ব্লগ চালু হবে, তখন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের লিংক তাতে যুক্ত করতে পারবেন। যখন আপনার সাইট থেকে ওই প্রতিষ্ঠানের পণ্য বা সেবা কোনো দর্শক কিনবেন, তখনই আপনার আয় আসতে শুরু করবে। এর ফলে কাজের প্রতিও ভালোবাসা জন্মাবে।

Virtual Assistent দ্বারা টাকা ইনকাম

এখন ভার্চ্যুয়াল সহকারীদের কাজের ক্ষেত্র বেড়েছে। ঘণ্টাপ্রতি আয়ও বেশি। বাড়ি থেকে করপোরেট অফিসের নানা কাজ অনলাইনে করে দেওয়ার সুবিধা আছে এখন। ভার্চ্যুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কর্মী বা নিজের ব্যবসা নিজেই চালানো যায়। বিভিন্ন দক্ষতার ভিত্তিতে ভার্চ্যুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট নিয়োগ দেয় প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে ফোন কল, ই-মেইল যোগাযোগ, ইন্টারনাল রিসার্চ, ডেটা এন্ট্রি, এডিটিং, রাইটিং, ব্লগ, গ্রাফিকস, টেক সাপোর্ট, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবস্থাপনার মতো কাজ থাকে। ২৪ / ৭ ভার্চ্যুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট, অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যাচ, ফ্রিল্যান্সার ডটকম, পিপল পার আওয়ার, আপওয়ার্কের মতো সাইটগুলোতে কাজ পাওয়া যায়।

পড়ুনঃ  Weight Loss Tips: নিয়ম মানলেই কমবে ওজন, টিপস দেখুন

ট্রান্সলেশন করে টাকা আয়

ইংরেজির পাশাপাশি অন্য কোনো ভাষা ভালোভাবে জানা থাকলে সেই দক্ষতা কাজে লাগিয়ে আয় করতে পারেন। বেশ কিছু ওয়েবসাইট আছে যেখানে বিভিন্ন ডকুমেন্ট অনুবাদ করে আয় করতে পারেন। যাঁদের স্প্যানিশ, ফ্রেঞ্চ, আরবি, জার্মানসহ অন্যান্য ভাষা জানা আছে এবং এগুলো থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ বা ইংরেজি থেকে এসব ভাষায় অনুবাদ করতে পারলে ভালো আয় করতে পারবেন। অনেক সময় কাজদাতারা নিজে সময়ের অভাবে অনুবাদের কাজ ফ্রিল্যান্সারদের দিয়ে করিয়ে নেন। ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলোতে এ ধরনের কাজ পাবেন।

Online এ টিউশনি করে আয়

কোনো বিষয়ে যদি আপনার পারদর্শিতা থাকে, তবে অনলাইনে সে বিষয়ে শিক্ষা দিতে পারেন। অনলাইন টিউটরদের এখন চাহিদা বাড়ছে। সব বয়সী শিক্ষার্থীদের আপনি শিক্ষা দিতে পারবেন। এখানে অন্য দেশের শিক্ষার্থীদেরও পড়ানোর সুযোগ রয়েছে। অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে অনলাইন টিউশনির সুযোগ রয়েছে। সেখানে সুবিধামতো সময়ে পড়াতে পারেন ছাত্র। এসব সাইটে নিজের দক্ষতার পরীক্ষা দিতে হয়। একবার নির্বাচিত হয়ে গেলে ওয়েবিনার পরিচালক হিসেবে অনলাইন সেশন পরিচালনা করতে পারেন। দক্ষতা বাড়লে এ ক্ষেত্র থেকে অনেক আয় (Online Income) করার সুযোগ আছে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ভবিষ্যৎ

অনলাইনে ঘরে বসে আয়ের ক্ষেত্রে গ্রাফিকস ডিজাইন ভালো উপায়। যাঁরা এই কাজে দক্ষ, তাঁরা বিভিন্ন ডিজাইন অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে দিয়ে রাখেন। সেখান থেকে তাঁদের আয় আসে। তাঁদের তৈরি একটি পণ্য অনেকবার বিক্রি হয়, অর্থাৎ একটি ভালো নকশা থেকেই দীর্ঘদিন পর্যন্ত আয় হতে থাকে। অনলাইনে এ ধরনের অনেক ওয়েবসাইটে গ্রাফিকসের কাজ বিক্রি করা যায়। এ ছাড়া অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতেও গ্রাফিকস ডিজাইনারদের অনেক চাহিদা রয়েছে। এর সাহায্যে অনলাইন ইনকাম (Online Income) করা সম্ভব। তবে সব কিছুই দেখে শুনে অভিজ্ঞতা নিয়ে তবেই শুরু করবেন।

ওয়েব ডিজাইন ও ফ্রিল্যান্সিং

বর্তমানে অনলাইনের কাজের ক্ষেত্রে ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা ব্যাপক। কোনো প্রজেক্টে ২০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত সহজে আয় করা যায়। সব ব্যবসায়ী প্রযুক্তিপ্রেমী নন। নিজেদের ওয়েবসাইট তৈরিতে তাঁদের ওয়েব ডিজাইনারের দরকার পড়ে। যাঁরা ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে চান নিজেদের ওয়েবসাইট খুলে সেখান থেকেই ছোট ব্যবসা দাঁড় করাতে পারেন। ওয়েবসাইট তৈরিতে এখন কোডিং আর ওয়েব ডিজাইন দুটিই গুরুত্বপূর্ণ। এ ছাড়া ওয়েবসাইট ব্যবস্থাপনা ও হালনাগাদের জন্যও ওয়েব ডিজাইনারকে দরকার পড়ে। ফলে ডিজাইনারকে বসে থাকতে হয় না। ক্লায়েন্ট ও কাজের ওপর ভিত্তি করে ওয়েব ডিজাইনারের আয় (Online Income) বাড়তে থাকে।

ব্লগিং করে ইনকাম

অনেকের লেখার অভ্যাস আছে। আপনি যদি এই অনুশীলনটি পেশাদারভাবে ব্যবহার করতে পারেন তবে আপনি অনলাইনে সহজেই আয় করতে পারবেন। ব্লগিং করেও আয় করার সুযোগ রয়েছে। ব্লগ থেকে আয় করার দুটি উপায় আছে। একটি হল আপনার নিজের ব্লগ সাইট তৈরি করা।

পড়ুনঃ  LIC Policy: প্রতিদিন জমান ১৬০ টাকা, দ্রুত বিনিয়োগ দ্রুত রিটার্ন

আপনি ওয়ার্ডপ্রেস বা ব্লগার প্ল্যাটফর্মে বিনামূল্যে একটি ব্লগ তৈরি করে শুরু করতে পারেন। আপনি চাইলে ডোমেইন হোস্টিং কিনে ব্লগ শুরু করতে পারেন। কিন্তু নিজে নিজে একটি ব্লগ শুরু করতে কিছু বিনিয়োগের প্রয়োজন হবে। অর্থাৎ ডোমেইন, হোস্টিং কিনতে হবে।

নিজস্ব ব্লগ শুরু করা ভাল। কারণ, এতে আপনার চাহিদা অনুযায়ী অনেক পরিবর্তন করার সুযোগ রয়েছে। আপনি বিজ্ঞাপন, ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল, প্রোডাক্ট রিভিউ ইত্যাদি বিভিন্ন উপায়ে ব্লগ থেকে আয় করতে পারেন। তবে আপনি যদি ব্লগ লিখে টাকা আয় করতে চান তাহলে রাতারাতি আয় (Online Income) আসবে না। এর জন্য অনেক সময় এবং ধৈর্যের প্রয়োজন। অনেক লোক তাদের ব্লগকে মনিটাইজ করতে কয়েক বছর সময় নেয়। নিয়মিত কন্টেন্ট আপডেট দিয়ে ব্লগকে সচল রাখতে কাজ করতে হবে সার্বক্ষনিক।

Content লিখে টাকা আয়

যারা লিখতে পারদর্শী এবং একাধিক ভাষায় সাবলীলভাবে লিখতে পারেন তাদের বেকার বসে থাকতে হয়না। আপনি অনলাইন প্ল্যাটফর্মে কাজ করে বা লেখার মাধ্যমে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন। নিবন্ধ লেখার মানের উপর ভিত্তি করে টাকা উপার্জন (Online Income) হয়। নিয়োগকর্তারা নির্দিষ্ট নীতির সাথে লিখিত সম্মতির জন্য জিজ্ঞাসা করতে পারেন। আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে আপনার দক্ষতা উন্নত করতে পারেন তবেই আপনার আয় বৃদ্ধি পাবে।

ইউটিউব থেকে আয়

আপনি ক্যামেরার সাহায্যে ভিডিও তৈরি করে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে এডিটিং জানতে হবে। আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল খুলে এবং এতে ভিডিও আপলোড করতে পারেন। আর এটি থেকে আপনি আয় করতে পারেন।

আপনার চ্যানেল কোন ক্যাটাগরির হবে এবং আপনি এতে কি ধরনের ভিডিও আপলোড করবেন তা আগে থেকেই ঠিক করুন। যদি আপনার কাছে এমন একটি বিষয়ের উপর ভিডিও না থাকে যা মানুষ দেখতে আগ্রহী তবে, লোকেরা এটি দেখবে না। ভিডিওটি না দেখলে আপনার আয় (Online Income) হবে না।

বিষয়টা অনেকটা ব্লগের মত। কিন্তু এই ক্ষেত্রে বিষয়বস্তু ভিডিও। চ্যানেল সাবস্ক্রাইবার এবং ভিডিও দেখার সময় বৃদ্ধির সাথে সাথে উপার্জনের সম্ভাবনা বাড়বে।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করে ইনকাম

Facebook, Twiter, Instagram, Snapchat এইগুলি এখন আর শুধু বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য নয়। এগুলো ব্যবহার করে আপনি ভালোরকমের আয় করতে পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া পরিকল্পনাকারীদের বিভিন্ন সংস্থা এবং ব্র্যান্ড তাদের ব্র্যান্ডের প্রচারের জন্য প্রচুর অর্থ প্রদান করে। অনলাইনে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে সৃজনশীলতা প্রয়োজন। ফেসবুক বা অন্যান্য মাধ্যমে বিভিন্ন পোস্ট করা, ভিডিও প্রকাশ করা এবং সেগুলো ভাইরাল করে ভালো পরিমানে টাকা উপার্জন (Online Income) করা যায়। যাইহোক, সোশ্যাল মিডিয়াতে ফ্যান-ফলোয়ার তৈরি করতে এবং তাদের ধরে রাখতে প্রচুর ধৈর্য এবং প্রাসঙ্গিক বিষয়বস্তু থাকা ও পোষ্ট করা গুরুত্বপূর্ণ।
Written by Ajay Gupta.

Gupta Ajay

নমস্কার, আমি অজয় গুপ্ত। আমি একজন কনটেন্ট রাইটার। বিগত ৫ বছর ধরে টেক, ব্যবসা, অনলাইন ইনকাম, লাইফস্টাইল ইত্যাদি বিষয়ে লেখালিখি করছি। লেখা নিয়ে কোন মতামত থাকলে কমেন্টে জানাতে পারেন। Ajay Gupta Senior Content Writter

Leave a Comment

error: Content is protected !!